সঠিক ও সহজ জুঁই ফুল চাষ পদ্ধতি শিখে নিন

মন মাতানো সুগন্ধি এবং বাঙালিদের অত্যন্ত জনপ্রিয় জুঁই ফুল চাষ খুব সহজেই করা যায়। ইদানিং আমাদের দেশে এই ফুল বাণিজ্যিকভাবে চাষাবাদ হচ্ছে।

শুধু সৌন্দর্য বর্ধনই নয়, ‘জুঁই’ এখন অর্থকরী ফুল।

মালা তৈরির জন্য, ফুল সজ্জায় এবং উপাসনার ডালা সাজানোর জন্য ব্যবহৃত জুঁই ফুলের চাহিদা থাকায় আর্থিক ভাবে লাভ হচ্ছে চাষিরা।

আজ আমরা এই নিবন্ধে সহজ উপায়ে কিভাবে জুঁই ফুলের চাষ করবেন তা নিয়ে আলোচনা করব।

জুঁই ফুল চাষ করতে শিখে নিন সহজ পদ্ধতি

জুঁই ফুল গাছের উচ্চতা ১০ থেকে ১৫ ফুট পর্যন্ত হয়ে থাকে। মূলত সাদা রঙের এই ফুল মার্চ-জুন পর্যন্ত সময়ের মধ্যে ফোটে।

প্রায় সব ধরনের মাটিতে জুঁই ফুলের চাষ করা গেলেও, জৈব পদার্থ সমৃদ্ধ সুনিষ্কাশিত বেলে দোআঁশ মাটিতে জুঁই ফুল গাছ ভালো জন্মে।

জমি তৈরী ও রোপণ পদ্ধতি

  • জুঁই ফুলের চাষের জমি বা টবের মাটিতে গোবর সার ভালো ভাবে মিশিয়ে নিলে এই ফুলের চাষ ভালো হয়।
  • এছাড়া চাষ শুরু করার আগে জমিকে আগাছামুক্ত করে নিতে হবে।
  •  এই ফুলের রোপণের গর্তগুলো এক মাস আগে ৩০ সেমি আকারে প্রস্তুত করে সূর্যের আলোতে রাখতে হবে।
  • প্রতিটি গর্ত বা টবের মাটি তৈরির সময় ১০ কেজি গোবর সার ভালোভাবে মিশিয়ে দিতে হবে।
  • মাটিতে গোবর সার প্রয়োগ করলে এই ফুলের চাষাবাদ ভালো হয়।
  • জুন-নভেম্বর পর্যন্ত জুঁই ফুলের চারা রোপনের আদর্শ সময়।
  • জুঁই ফুল গাছের গোড়ায় পানি যাতে জমতে না পারে সে দিকে লক্ষ্য রাখতে হবে।
  • অতিরিক্ত সূর্যের আলো এই ফুল গাছের জন্য বিপজ্জনক; সারাদিনে ঘণ্টাখানেক রোদই যথেষ্ট।
  • টবে যদি এই গাছ বসানো হয়, তবে তা জানালার পাশে রাখতে পারেন।
  • শীতকালে ঠাণ্ডা হাওয়া থেকে বাঁচিয়ে রাখতে হয় জুঁই ফুল গাছকে।
  • শীতকালে সাধারণত ফুল ফোটে কম; তবে এই সময় গাছের বৃদ্ধি ভালো হয়।
  • জুঁই ফুল ফোটলে প্রচুর পানি দিতে হয়; সেই সময় এই গাছের গোড়া ভিজে রাখতে পারলেই ভাল।

সার প্রয়োগ ও পরিচর্যা

জুঁই ফুলের চাষ জমি বা টব তৈরির সময় প্রতি গাছের জন্য…

  • নাইট্রোজেন ৬০ গ্রাম,
  • পটাশিয়াম ১২০ গ্রাম,
  • এবং ফসফরাস ১২০ গ্রাম সারের মিশিয়ে প্রয়োগ করতে হবে।

এই সার গুলো ২ বারে প্রয়োগ করতে হবে। অতিরিক্ত জৈব সার হিসাবে, নিমের খোল, সরিষার খোল ইত্যাদি প্রয়োগ করা উত্তম। এছাড়া ফুলের ফলন বাড়াতে জিঙ্ক ০.২৫% এবং ম্যাগনেসিয়াম ০.৫% হরে স্প্রে করতে পারেন।

জুঁই ফুল ক্ষেতে বা টবে নিয়মিত আগাছা পরিস্কার করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এছাড়া এই ফুল গাছের যথাযথ বৃদ্ধি এবং ভালো ফলনের জন্য প্রয়োজন মত সেচ দিতে হবে।

পোকামাকড় ও রোগবালাই দমন

জুঁই ফুলে শিকড় পচা রোগের লক্ষণগুলি হল বাদামি বর্ণের ফুসকুড়ি পাতার নিচের পৃষ্ঠে দেখা যায় এবং কখনও কখনও কান্ড এবং ফুলেও দেখা যেতে পারে।

শিকড়ের পচা রোগ থেকে নিরাময় পেতে কপার oxychloride ২.৫ গ্রাম প্রতি লিটারে মিশিয়ে মাটিতে প্রয়োগ করতে হবে।

লাল মাকড়সা পোকার আক্রমণে জুঁই ফুল গাছের পাতার উপরের পৃষ্ঠের বিচিত্র বর্ণালি প্রদর্শন করে। পাতাগুলি তাদের রঙ হারাতে শুরু করে এবং অবশেষে ঝরে পড়ে।

এই পোকার আক্রমণে থেকে মুক্তি পেতে সালফার ৫০% WP ২ গ্রাম প্রতি লিটার পানিতে মিশিয়ে স্প্রে করতে পারেন।

ফুল সংগ্রহ

জুঁই ফুলের চারা রোপনের ১০০-১২০ দিনের মধ্যে ফুল ফোটে। এই ফুল চাষের সবচেয়ে বড় সুবিধা হল, গাছের বয়স যত বাড়বে ততই জুঁই ফুলের উৎপাদন বেশি হবে।

বগ্লে প্রকাশিত কোনও তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

আরো পড়ুন … 

**চাষাবাদ ও কৃষি সম্পর্কিত সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম, ছবি, ভিডিও প্রতিবেদন, বিশ্লেষণ, খবর পড়তে আজই জয়েন করুন আমাদের অফিসিয়াল ফেসবুক গ্রুপ ” বীজ ঘর ( কৃষি কথা )”  হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ ” বীজ ঘর ( কৃষি কথা )” অথবা  টেলিগ্রাম চ্যানেল  ”বীজ ঘর ( কৃষি কথা )’‘ এ। 

মতামত দিন

Item added to cart.
0 items - 0.00
Need Help?